‘পুলিশের হেলমেট নাই’, ‘মামা ২০০ টাকা দেও’

‘পুলিশের হেলমেট নাই’, ‘মামা ২০০ টাকা দেও’

রাজধানীর একটি সড়কে মোটরসাইকেলে থাকা এক পুলিশ কর্মকর্তার হেলমেট না পেয়ে তাকে কটাক্ষ করেছে ছাত্ররা। পুলিশের ঘুষ খাওয়ার প্রবণতা নিয়ে রসিকতা করে তারা ২০০ টাকাও চেয়েছে। এর পর্যায়ে তাকে চিপসও খাওয়ানো হয়।

নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করার দাবিতে গত সোমবার থেকে টানা সড়কে অবস্থান নিয়ে চালিয়ে আসা বিক্ষোভে বুধবার থেকে ছাত্ররা ব্যাপকভাবে গাড়ির চালকের লাইসেন্স পরীক্ষা করতে শুরু করে। এ সময় একটি সড়কে হেলমেটবিহীন একজন পুলিশ কর্মকর্তাকে পেয়ে তার সঙ্গে ছাত্রদের কথোপকথনের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

সড়কে আইন অমান্য করলে ব্যবস্থা না নিয়ে পুলিশের ঘুষ খাওয়ার প্রবণতা নতুন নয়। তবে পুলিশ নিজেই সড়কে কতটা আইন মানে তা নিয়েও আছে প্রশ্ন।

হেলমেটবিহীন মোটরসাইকেল চালালো বা আরোহী বহন করলে জরিমানা হওয়ার কথা। পুলিশ নানা সময় সে ব্যবস্থা নিয়েও থাকে। তবে হেলমেট ছাড়া পুলিশকেই মোটরসাইকেল চালাতে দেখা যায়। আর বাইকের চালক পুলিশের সঙ্গে হেলমেটসহ কাউকে দেখা যায় কালেভদ্রে।

এর মধ্যে ওই পুলিশ কর্মকর্তার মাথায় হেলমেট না পেয়ে তাকে ঘিরে ধরে এ নিয়ে জিজ্ঞাসা করতে থাকে ছাত্ররা।

ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে চিপস খাওয়াতে খাওয়াতে ‘হেলমেট নাই, হেলমেট নাই’ বলে স্লোগান চলতে থাকে। এর মধ্যে একজন ছাত্র ওই পুলিশ কর্মকর্তার টেকো মাথায় হাত বুলাতে থাকেন।

একজন ছাত্র আবার পুলিশের ঘুষ খাওয়ার প্রবণতাকে কটাক্ষ করে বলেন, ‘ওই মামা, দুইশ টাকা দেও, দুইশ টাকা দেও’।

অবস্থা বেগতিক দেখে ওই পুলিশ কর্তকর্তা মুখে কাষ্ট হাসি দিয়ে ছাত্রদের ভুলাতে চেষ্টা করেন। কিন্তু ছাত্ররা কোনোভাবেই মানতে রাজি হচ্ছিল না।

এর মধ্যেই পুলিশ মোটরসাইকেল আটকালে যেভাবে চাবি নিয়ে যায়, ছাত্ররাও তেমনি ওই বাইকের চাবি হাতে নেয়।

আর ক্রমাগতভাবে তারা বলতে থাকেন, ‘দুইশ টাকা দেও, দুইশ টাকা দেও’।

একজন ছাত্র আবার বলেন, ‘ওই কেউ গায়ে হাত দিবি না, কেউ গায়ে হাত দিবি না।’

এর মধ্যেই একজন আবার ওই পুলিশ কর্মকর্তার মুখে চিপস গুঁজে দেন। আর অন্যরা উল্লাসে চিৎকার করেন ‘ওওওওওইইইইই’ বলে।

একজন ছাত্র বলেন, ‘আপনি পুলিশের মর্যাদা রেখেছেন? আপনি কীভাবে আইন শেখাবেন? আমাদেরকে কীভাবে আইন শেখাবেন?’

আরেকজন বলেন, ‘হেলমেট নাই, লাইসেন্স নাই, কিসের আইন শেখাবেন আপনি?’।

এ সময় স্লোগান ওঠে, ‘ওই পুলিশের হেলমেট নাই, পুলিশের হেলমেট নাই