খরায় বিয়ে, বন্যায় ডিভোর্স!

খরায় বিয়ে, বন্যায় ডিভোর্স!

যথেষ্ট পরিমাণ বৃষ্টি পাওয়ার আশায় সনাতন বিশ্বাসে ব্যাঙের বিয়ে দেওয়ার রীতি ভারতের অনেক জায়গায় প্রচলিত। জুলাই মাসে সেই বিশ্বাসেই ভোপালে ঢাকঢোল পিটিয়ে বিয়ে দেওয়া হয়েছিল ব্যাঙ যুগলের। এরপর বর্ষা মৌসুম এলে প্রবল বৃষ্টিপাত শুরু হয় মধ্যপ্রদেশের অধিকাংশ জেলায়। আবহাওয়া দফতরের হিসেবে, গত কয়েক সপ্তাহে স্বাভাবিকের চেয়ে ২৬% বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে ওই সমস্ত অঞ্চলে।

এমন ভাবে বৃষ্টি আনতে ধুমধাম করে দুই ব্যাঙের বিয়ে দেওয়া হয়েছিল গত জুলাই মাসের ১৯ তারিখে। এর পর লাগাতার প্রবল বর্ষণের জেরে বন্যা দেখা দিয়েছে মধ্যপ্রদেশে। সেই বানের পানিতেই ভেসে গেল ব্যাঙের সুখী দাম্পত্য।

লাগাতার ভারী বৃষ্টির জেরে বন্যা দেখা দেয় রাজ্যের বেশির ভাগ জেলায়। রোববার ভোপালে ১৩ বছরের রেকর্ডও ভেঙেছে এবারের বর্ষণ। অবস্থা বেগতিক দেখে ব্যাঙের বিয়ে ভেঙে দেওয়ার পরিকল্পনা করেন ভোপালের ইন্দ্রপুরী অঞ্চলের ওম শিব সেবা শক্তি মণ্ডলের সদস্যরা। ফের ডাক পড়ে পুরোহিতের। বিবাহ বিচ্ছেদর সঙ্গে সঙ্গে মন্ত্রোচ্চারণ ও যাগযজ্ঞের মাধ্যমে অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

তবে বিয়ে ভেঙে দেওয়ার প্রভাব এখনও দেখা যাচ্ছে না বলে উদ্বিগ্ন ভোপালবাসী। বুধবার শহরে বৃষ্টি হয়েছে ৪৮ মিমি। বন্যার আশঙ্কায় খুলে দিতে হয়েছে ভোপাল কালিয়াসোট বাঁধ, ভাদভাদা বাঁধ এবং কোলার বাঁধের বেশ কয়েকটি স্লুইস গেট।

শুধু ভোপালই নয়, বৃষ্টির কামনায় বরুণদেবকে খুশি করতে ব্যাঙ যুগলের বিয়ে দেওয়া হয়েছে কর্নাটকের উদুপি জেলাতেও। দিন দশেক দেরি করলেও সে রাজ্যে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ স্বাভাবিকের মাত্রা অনেকটাই পেরিয়ে গিয়েছে। আশঙ্কা, পরিস্থিতি না বদলালে ঘর ভাঙতে পারে আরও বেশ কিছু ব্যাঙের। সূত্র- এই সময়, কলকাতা