‘বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের দেশে ফিরিয়ে নিয়ে শাস্তি কার্যকর করুন’

‘বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের দেশে ফিরিয়ে নিয়ে শাস্তি কার্যকর করুন’

ইতালী আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মাতাব হোসেন ইংল্যান্ডের লন্ডন সফরকালে সেখানে আয়োজিত একাধিক শোকসভায় অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন।

ইতালী আওয়ামী লীগের জনপ্রিয় এই নেতা ব্যক্তি জীবনে সততার পরিচয় দিয়ে আসছেন। একজন রাজনৈতিক সৎ ব্যক্তি হিসেবেও ইতালির সর্বত্র জনপ্রিয়তা রয়েছে এই নেতার।

শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলার কৃতি সন্তান বহু বছর ধরে ইতালিতে থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ প্রচারে কাজ করে যাচ্ছেন। জনাব মাহতাব হোসেনের হাত ধরে অনেকেই আজ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে প্রতিষ্ঠিত রাজনীতিবিদ।

ইউরোপের প্রতিটি দেশেই রয়েছে তার গ্রহণযোগ্যতা এবং জনপ্রিয়তা। জামাত-শিবিরের বিরুদ্ধে আপসহীন এই নেতার বিকল্প খুঁজে পাওয়া কঠিন।

সর্ব ইউরোপীয়ান বঙ্গবন্ধু পরিষদ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় অতিথি হিসেবে বক্তব্য কালে জনাব মাহতাব বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট সপরিবারে জাতির জনককে হত্যা করে ঘাতকরা বাংলাদেশকে পাকিস্তানের অঙ্গরাজ্য বানাতে চেয়েছিল। ওই চক্র দেশি বিদেশি ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শকে হত্যা করে বাংলাদেশকে পাকিস্তানি রাষ্ট্রে পরিণত করা ষড়যন্ত্র করেছিল।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে জনাব মাহতাব বলেন, আমরা বিশ্বের এই মহান নেতাকে হারালাম কিন্তু তার আদর্শ, মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্নকে হত্যা করতে পারেনি ঘাতকরা।

ইতালিতে স্থায়ীভাবে বসবাস করেন জনাব মাহাতাব হোসেন। তার ছেলে নাঈমুল হোসেন ইতিমধ্যেই ব্যারিস্টার হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন। লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যারিস্টারি পাস করেন বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধার ছেলে নাইমুল হোসেন। তার একমাত্র মেয়ে আরিয়ানা হোসেন লন্ডনে পড়াশোনা করেন। ইতালি প্রবাসী আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীদের অত্যন্ত পছন্দের নেতা এই মুক্তিযুদ্ধা মাহতাব হোসেন।