ছেলেকে দোকানে পাঠিয়ে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা বাবার

ছেলেকে দোকানে পাঠিয়ে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা বাবার

সিদ্ধিরগঞ্জে ছেলেকে দোকানে পাঠিয়ে প্রথম শ্রেণির এক শিশু ছাত্রী (১১) কে ধর্ষণ চেষ্টা করেছে মনিরুজ্জামান খান (৫৫) নামে এক লম্পট। এলাকাবাসী তাকে গণধোলাই দিয়ে আটকে রাখে। পরে রাত ১১টার দিকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এএসআই আল আমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে লম্পট মনিরুজ্জামান ও ভিকটিমকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার (১০ আগস্ট) বিকেলে দক্ষিন নিমাইকাশারী জৈনিক সুমনের বাড়িতে। মনিরুজ্জামান ওই বাড়িতে ভাড়া থাকেন। তার গ্রামের বাড়ি নরসিংদীর পলাশ থানার কুটির পাড়া বালুর চর এলাকায়।

এ ঘটনায় ওই শিশুর বাবা মনির হোসেন বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার তথ্য মতে, শনিবার বিকাল ৩টার দিকে মনির হোসেনের শিশু কন্যা মনিরুজ্জামানের ছেলে আতিকুল (১২) এর সাথে খেলার জন্য তাদের বাড়িতে যায়। বিকেল সোয়া ৪টার দিকে মনিরুজ্জামান তার ছেলে আতিকুলকে তেজপাত, জিরা ও আদা আনতে কৌশলে সানারাড় পাঠিয়ে দেয়। পরে ঘরের দরজা বন্ধ করে জোরপূর্বক শিশু স্কুল ছাত্রীর পাজামা খুলে তেল মালিশ করে লম্পট মনিরুজ্জামান। এ সময় শিশুটি চিৎকার করতে চাইলে তার মুখ চেপে ধরে ধর্ষণের চেষ্টা করে সে। এক পর্যায়ে শিশুটি কাঁদতে কাঁদতে থাকলে তাকে ছেড়ে দেয় মনিরুজ্জামান। এ সময় শিশুটি বাড়ি গিয়ে তার মায়ের কাছে ঘটনা প্রকাশ করে। এরপর বিষয়টি স্থানীয় টের পেয়ে লম্পট মনিরুজ্জমানকে আটক করে গণপিটুনি দেয়। পরে রাত ১১টার দিকে পুলিশ গিয়ে তাকেসহ ভিকটিমকে থানায় নিয়ে আসে।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ফারুক জানান, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। আসামী গ্রেপ্তার আছে। মেডিক্যাল টেস্টের পর বিস্তারিত জানা যাবে।