ভারতের চন্দ্রযান-২ এর দায়িত্বে বাঙালি কৃষকের ছেলে

ভারতের চন্দ্রযান-২ এর দায়িত্বে বাঙালি কৃষকের ছেলে

এক সপ্তাহ আগেই ওড়ার কথা ছিল চন্দ্রযান-২ এর। কিন্তু যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বিলম্ব হলো বেশ কিছুটা সময়। আর এ চন্দ্রযান ওড়ার অপেক্ষায় যারা ছিলেন তাদের তালিকায় রয়েছেন হুগলির বাঙ্গালি চাষী মধুসূদন কুমার। কারণ এ যানের গুরুদায়িত্ব সামলাচ্ছেন তারই ছেলে চন্দ্রকান্ত।

হুগলির শিবপুর গ্রামের মধুসদন কুমার স্ত্রীয়ের সঙ্গে গত রোববার (২১ জুলাই) সারা রাতই অপেক্ষা করেছিলেন চন্দ্রযান ২-এর উড়ানের জন্য।

এক সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, ছেলের কাজ সম্পর্কে তিনি বিশেষ কিছু জানেন না, কিন্তু ছেলের ওপর তার সিনিয়ররা খুবই ভরসা করেন এবং তাকে গুরুভারও দিয়েছেন। কিন্তু এর আগে চন্দ্রযান ২-এর উড়ান শেষ মুহূর্তে বন্ধ করে দেওয়ায় খুবই খারাপ লেগেছে তাদের। কিন্তু এই মিশন যে সফল হবেই সে বিষয়ে যথেষ্ট আশাবাদী তিনি। ২০০১ সালে ইসরোতে যোগদানের পরে ক্রমশই নিজের কাজের মাধ্যমেই সামনে এগিয়ে গিয়েছেন চন্দ্রকান্ত। হয়ে উঠেছেন চন্দ্রযান ২-এর অন্যতম প্রধান বিজ্ঞানী। চন্দ্রাকান্ত ভাই শশীকান্তও একজন বিজ্ঞানী। তিনি বর্তমানে ইন্ডিয়ান স্পেস এজেন্সিতে কর্তব্যরত।

চন্দ্রযান ২ অভিযানে চাঁদের মাটিতে পা রাখতে চলেছে ভারত। অপরদিকে, সেই অংশটিতে নাসাও যাওয়ার উদ্যোগ নিচ্ছে। উল্লেখ্য, গত ডিসেম্বরেই ট্রাম্প চন্দ্রাভিযানের নির্দেশ দিয়েছিল। চাঁদের ওই অন্ধকার অংশটি থেকে পাথর তুলে আনবে রোবট। সেই পাথর পরীক্ষাগারে পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হবে বলে জানা যাচ্ছে। তবে, ভারত চন্দ্রাভিযানের যে পদক্ষেপ নিয়েছে তা অনেক বেশি শক্তিশালী এমনটাই দাবি ভারতের।

এই মিশন সফল হলে আমেরিকা, রাশিয়া ও চিনের পরে চাঁদে সফল অবতরণের ক্ষেত্রে ভারত চতুর্থ দেশ হবে। রকেটটি মহাকাশে পাড়ি দিল একটি অরবিটার, ‘বিক্রম’ নামের একটি ল্যান্ডার ও ‘প্রজ্ঞান’ নামের মুন রোভারকে সঙ্গে নিয়ে।