শেখ হাসিনাকে বিশ্ব নেতাদের শুভেচ্ছা

শেখ হাসিনাকে বিশ্ব নেতাদের শুভেচ্ছা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন জোট নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী, চীনের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী, ভুটানের রাজা ও

প্রধানমন্ত্রী, নেপালের প্রধানমন্ত্রী এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও ত্রিপুরা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। তারা বলেছেন, শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও উন্নয়নের

কারণে জনগণ তাকে বেছে নিয়েছে। ভবিষ্যতেও শেখ হাসিনা সরকার জনগণের আস্থার প্রতিদান দিতে পারবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে তারা।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় টেলিফোনে শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানান। শুভেচ্ছা জানিয়ে কোনো

রাষ্ট্রপ্রধানের এটিই ছিল প্রথম ফোন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব এহসানুল করিম জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, আওয়ামী লীগ ও দেশের

জনগণকে অভিনন্দন জানিয়েছেন মোদি। তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের এই বিজয় হচ্ছে আপনার দক্ষ নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্জিত অসামান্য

উন্নয়নের প্রতিফলন।’ মোদি বাংলাদেশের উন্নয়ন প্রচেষ্টায় অতীতের মতো তার দেশের অব্যাহত সমর্থনের আশ্বাস দেন। জবাবে শেখ হাসিনা মোদি ও ভারতের জনগণকে শুভেচ্ছা জানান।

ঢাকায় ভারতের দূতাবাসের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মোদি আরও বলেছেন, শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বের অধীনে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে

নিরাপত্তা ও সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। ভারতের ‘প্রতিবেশী প্রথমে’ নীতির স্তম্ভ হিসেবে বাংলাদেশকে অগ্রাধিকার দেবে দেশটি।

বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত ঝাং ঝু বিকালে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ও প্রধানমন্ত্রী লি

কেকিয়াংয়ের অভিনন্দন বার্তা পৌঁছে দেন। এ বার্তায় তারা বলেছেন, শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরিত

হবে এবং রূপকল্প ২০২১ বাস্তব রূপ পাবে। শিগগিরই বাংলাদেশে দারিদ্র্যের হার শূন্যে নেমে আসবে। এছাড়া দু’দেশের সুসম্পর্ক অব্যাহত থাকবে।

ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং দুপ–র দেড়টায় ফোন করে অভিনন্দন জানান। ইহসানুল করিম বলেন, টেলিফোনে কথা বলার সময় দুই

প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন, দুই দেশের মধ্যকার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ও সহযোগিতা ভবিষ্যতে আরও জোরদার হবে। এ সময় শেখ হাসিনা ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে ভুটানের রাজা ও রাজকীয় পরিবারকে অভিনন্দন জানান।

এদিকে লিখিত বার্তায় শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন ভুটানের রাজা জিগমে সিংয়ে ওয়াংচুক। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে এ

বার্তা পাঠান তিনি। ওয়াংচুক শেখ হাসিনার শক্তিশালী নেতৃত্বের প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি অব্যাহত থাকবে এবং ভুটানের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক অব্যাহত থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

নেপালের প্রধানমন্ত্রী খড়গ প্রসাদ শর্মা ওলি সন্ধ্যায় ফোন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তার দল এবং জনগণকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

টেলিফোন আলাপকালে দুই প্রধানমন্ত্রী দু’দেশের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক এবং সহযোগিতা আরও জোরদারে একসঙ্গে কাজ করবে বলে তারা আশাবাদ পুনর্ব্যক্ত করেন।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ও ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবও শেখ হাসিনাকে ফোন করে অভিনন্দন জানান। এছাড়া

মমতা সোমবার এক টুইট বার্তায় বলেন, বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ের জন্য শেখ হাসিনাজিকে অভিনন্দন জানাই।