যে কারণে মানুষের গায়ের রং সাদা কিংবা কালো হয়! – কোরআনের ব্যাখ্যা

যে কারণে মানুষের গায়ের রং সাদা কিংবা কালো হয়! – কোরআনের ব্যাখ্যা

কোরআনের ব্যাখ্যা, মানুষের গায়ের রং যে কারণে সাদা কিংবা কালো হয় পৃথিবীতে কোটি কোটি মানুষের মধ্যে কেউ কালো, কেউ সাদা, কেউ বা শ্যমল বর্ণের হয়ে থাকে। কিন্তু কেন? যদি সব মানুষের গায়ের রং এক হতো তাহলে কেউ কাউকে নিশ্চয় অপছন্দ করতো না্। কিংবা নিজে ফর্সা বলেও কেউ অহংকার করতো না। তাই অনেকের মনেই প্রশ্ন জাগে মানুষের গায়ের রং ঠিক কি কারণে আলাদা বর্ণের হয়েছে। বিজ্ঞান এর নানা রকম বর্ণনা দিয়েছে। তবে অনেকের আগ্রহ কুরআন ও হাদিস এ প্রসঙ্গে কী বলেছে।

এ প্রসঙ্গে কুরআন ও হাদিসের বেশ কিছু বর্ণনা পাওয়া যায়। আবু মুসা আশয়ারী রা. থেকে একটি বর্ণনা পাওয়া যায়। রাসুল সা. বলেছেন, ‘নিশ্চয় আল্লাহ তায়ালা আদমকে এক মুঠো মাটি থেকে সৃষ্টি করেছেন এবং এই মাটি তিনি জমিনের সব জায়গা থেকে নিয়েছেন, যার কারণে আদম সন্তান হয়েছে জমিনের প্রকৃতির মতো, কেউ লাল, কেউ কালো, কেউ সাদা ও কেউ হলুদ এমন নানা বর্ণের । এভাবে কেউ হয়েছে নরম স্বভাবের, কেউ হয়েছে কঠিন, কেউ ভালো, আবার কেউবা খারাপ।’ (তিরমিযি, ইবনে হিব্বান)

এই হাদিস পড়লেই স্পষ্ট হয়, মানুষের একেক রকম বর্ণ ও একেক রকম স্বভাব আল্লাহর একান্ত সৃষ্টি ও মানুষের তাকদির অনুসারে হয়েছে। মানুষ হয়েছে তার উপাদানের ধরণ অনুযায়ী। যে কালো মাটি থেকে সৃষ্ট তিনি কালো বর্ণের। যে সাদা বা লাল মাটি থেকে তৈরি তিনি সাদা বা লাল হয়ে থাকেন। আর এ বিষয়টি সবারই জানা, পৃথিবীর সব জায়গার মাটি এক বর্ণের নয়। আফ্রিকার মাটি আর যুক্তরাষ্ট্রের মাটির মধ্যে রাত দিন তফাৎ। যে কারণে তাদের চেহারাও আমরা পুরোপুরি ভিন্ন দেখতে পাই।আবার মাটির স্বভাবও বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে। কোথাও কাদা মাটি কোথাও বা পাথরের মতো শক্ত। সেই মাটি অনুযায়ী মানুষের স্বভাবও হয়ে থাকে তেমনই নরম ও কঠিন। এগুলো আল্লাহর কুদরত ও মহান ক্ষমতার নির্দশন। তিনি চান সকল মানুষ তার ক্ষমতার অধীনে থাকুক।

তিনি তার প্রজ্ঞা অনুসারে যেভাবে ইচ্ছা সৃষ্টি করতে পারেন। কেননা, তিনি যা চান, যেভাবে চান করতে পারেন।পবিত্র কুরআনে বর্ণের এ ভিন্নতা নিয়ে আল্লাহ বেশ কিছু আয়াত নাজিল করেছেন। সেখানে তিনি উল্লেখ করেছেন, বর্ণের এ ভিন্নতায় জ্ঞানীদের মধ্যে নিদর্শন রয়েছে। সত্যিই এটি নিয়ে কেউ চিন্তা করলেই বেশ কিছু বিষয় খুব সহজেই ধরা পড়ে। আল্লাহ বলেছেন, ‘আর নিদর্শনাবলীর মধ্যে রয়েছে আকাশ ও পৃথিবীর সৃষ্টি এবং তোমাদের ভাষা ও বর্ণের ভিন্নতা। নিশ্চয়ই এর মধ্যে নিদর্শনাবলী রয়েছে জ্ঞানীদের জন্য। (সুরা রুম, আয়াত ২২) আল্লামা শানকিতি রহ. বলেন, ‘একাধিক জায়গায় আল্লাহ তায়ালা পরিষ্কার ঘোষণা করেছেন, মানুষের রং ও বর্ণের পার্থক্য অথবা তার অন্যান্য সৃষ্টির মধ্যে তারতম্য আল্লাহর সৃষ্টিক্ষমতার বহির্প্রকাশ। এসব বস্তুর বিভিন্ন রং ও বর্ণ তার মহান সৃষ্টি ও নিখুঁত পরিকল্পনার ফসল।’ (আদওয়াউল বায়ান ৬/১৭৩)

মানুষ ইচ্ছে করলেই গবেষণার মাধ্যমে বের করতে পারবে মানব রং-এর এ তারতম্য বিষয়ে। আর মানুষের হেকমত তো হলো তার ¯্রষ্টার সৃষ্টিকে মেনে নেয়া। কেননা তিনিই উত্তম বিধানদাতা। সুরা আল ইমরানের ৭ নং আয়াতে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘তিনি তোমার প্রতি যে গ্রন্থ অবতীর্ণ করেছেন, তার মধ্যে আছে বিধান-সংবলিত আয়াত; এগুলোই কিতাবের মূল। আর অন্যগুলো ‘মুতাশাবিহ’ (যা প্রচ্ছন্ন)। যাদের অন্তরে বক্রতা রয়েছে, তারা ফেতনার উদ্দেশ্যে এবং ভুল ব্যাখ্যার অনুসন্ধানে ‘মুতাশাবিহ’ আয়াতসমূহের পেছনে লেগে থাকে, অথচ আল্লাহ ছাড়া কেউ এর ব্যাখ্যা জানে না। আর যারা জ্ঞানে গভীরতা রাখে, তারা বলে, আমরা এগুলোর প্রতি ঈমান আনলাম, সবগুলো আমাদের প্রতিপালকের পক্ষ থেকে। আর বুদ্ধিমানেরই উপদেশ গ্রহণ করে।

ইসলাম কেন পুরুষদের চারটি পর্যন্ত বিয়ের অনুমতি দিয়েছে?

ইসলাম কেন মুসলিম পুরুষদের চারটি পর্যন্ত বিয়ের অনুমতি প্রদান করেছে? এমনই এক প্রশ্নের উত্তর যৌক্তিক ব্যাখা দিয়েছেন ড. জাকির নায়েক। পিসটিভি বাংলায় ‘ডিয়ার টু আসক’ আলোচনায় প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এ বিষয়ে ব্যাখা দিয়েছেন।
কোরআনের আয়াতকে প্রমাণ হিসাবে উপস্থাপন করেন ড. জাকির বলেন,

‘আর যদি তোমরা ভয় কর যে, এতিম মেয়েদের হক যথাযথভাবে পুরণ করতে পারবে না, তবে সেসব মেয়েদের মধ্যে থেকে যাদের ভাল লাগে তাদের বিয়ে করে নাও দুই, তিন, কিংবা চারটি পর্যন্ত। আর যদি এরূপ আশঙ্কা কর যে, তাদের মধ্যে ন্যায় সঙ্গত আচরণ বজায় রাখতে পারবে না, তবে, একটিই অথবা তোমাদের অধিকারভূক্ত দাসীদেরকে; এতেই পক্ষপাতিত্বে জড়িত না হওয়ার অধিকতর সম্ভাবনা।’ সুরা নিসা-৩।

তিনি বলেন, ইসলাম ধর্মে চারটি পর্যন্ত বিয়ের অনুমোদন এ আয়াতটি দ্বারা প্রমাণিত হয়। তবে আয়াতে এও বলা হয়েছে একাধিক স্ত্রীর সমান অধিকার না আদায় করতে পারলে একটা বিয়েই করা যাবে। পৃথিবীর সকল ধর্মই পুরুষের জন্য একাধিক বিয়ে করার অনুমতি দিয়েছে।

কোনো ধর্মই একটি বিয়েতে সীমাবদ্ধ রাখেনি। তবে ইসলামের সঙ্গে পার্থক্য হচ্ছে, ইসলাম সকলের অধিকার আদায় করতে পারলে একাধিক বিয়ে করা যাবে আর না পারলে একটিই। হিন্দু ধর্মের রামায়ণ ও মহাভারত একাধিক বিয়ে করেছেন। মহাভারতের ১০৮ জন স্ত্রী ছিলো।

তিনি বলেন, ইসলামে পুরুষের জন্য একাধিক বিয়ের অনুমতি প্রদানে যৌক্তিক কারণও রয়েছে। তিনি বলেন, পৃথিবীতে পুরুষের তুলনায় নারীজাতির জন্ম হার বেশি। মেডিকেল পরীক্ষায় জানা যায়, ছেলেদের তুলনায় মেয়ের শরীর রোগ প্রতিরোধের বেশি কার্যকর।

তাদের মৃত্যু হারও কম। এ ছাড়া অসুস্থ হয়ে, যুদ্ধক্ষেত্রে, মদপান করে ও নানা দুর্ঘটনায় নারীর তুলানায় পুরুষের মৃত্যু বেশি হয়। পুরুষের তুলনায় নারীর সংখ্যা বেশি হওয়ার কারণেই ইসলামে পুরুষের জন্য একাধিক বিয়ের অনুমতি দিয়েছে।

ড. জাকির নায়েক বলেন, ধর্ম নয়, মানুষই শুধু একটি বিয়ের আইন করেছে। ইন্ডিয়ার প্যানেল কোড একটি বিয়ের আইন করেছে।