জেলে বসে জ্বর-সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত কয়েদি, আইসোলেশনে ভর্তি

জেলে বসে জ্বর-সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত কয়েদি, আইসোলেশনে ভর্তি

জ্বর-সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হওয়ায় নাটোর জেলা কারাগারের এক কয়েদিকে সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে। রোববার (২২ মার্চ) বিকেলে তাকে ওই কয়েদিকে আইসোলেশনে পাঠানো হয়।

দেশে করোনা আক্রান্ত পরিস্থিতির মধ্যে এই কয়েদির জ্বর-সর্দি-কাশি হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ায় তাকে আইসোলেশনে নেয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নাটোরের জেল সুপার আবদুল বারেক।

নাটোর জেলা কারাগার সূত্র জানায়, সদর থানার একটি মামলার আসামি ওই কয়েদি পাঁচদিন আগে জ্বর, সর্দি-কাশি, গলাব্যথা ও মাথাব্যথায় আক্রান্ত হন। এ অবস্থায় তাকে কারাগারের ভেতরের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু তিনি সুস্থ হচ্ছেন না। রোববার সকালে তার অবস্থার অবনতি হয়। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার উপসর্গ রয়েছে তার শরীরে।

জেল সুপার আবদুল বারেক বলেন, অসুস্থ কয়েদির শারীরিক অবস্থা দেখে কারা হাসপাতালের চিকিৎসকদের ধারণা, তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ফলে তার সুরক্ষার পাশাপাশি কারাগারের অন্য কয়েদি ও কারাকর্মীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিয়ে ভাবতে হচ্ছে আমাদের। দ্রুত করোনাভাইরাস শনাক্তের পরীক্ষা করানো দরকার তার। তা না হলে সবাইকে ঝুঁকির মধ্যে থাকতে হবে। এজন্য ওই কয়েদিকে আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে।

নাটোরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) শাহরিয়াজ বলেন, পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়া ওই কয়েদি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এমন কথা বলার সুযোগ নেই। যেহেতু কারা কর্তৃপক্ষ সন্দেহের কথা জানিয়েছেন এবং আদালত তার জামিন মঞ্জুর করেছেন। এ কারণে তাকে বাড়িতে না পাঠিয়ে আইসোলেশনে নেয়া হয়েছে।

নাটোরের সিভিল সার্জন মিজানুর রহমান বলেন, ওই কয়েদির জ্বর, সর্দি-কাশি ও গলাব্যথা রয়েছে। তার শরীরে করোনার উপসর্গ বিদ্যমান। এজন্য তাকে আইসোলেশনে নেয়া হয়েছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর করোনা আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।

নিউজ সোর্স: জাগো নিউজ