সিরিয়ায় গোপনে ৭৫ ট্রাক সেনা-অস্ত্র পাঠাল যুক্তরাষ্ট্র

ইরান-যুক্তরাষ্ট্রের হামলা-পাল্টা হামলার প্রেক্ষিতে মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে উত্তেজনার মধ্যে সিরিয়ায় গোপনে ৭৫ ট্রাক সেনা-অস্ত্র পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

কোনো প্রকার ঘোষণা ছাড়াই গোপনে সিরিয়ার তেলসমৃদ্ধ কয়েকটি এলাকায় প্রায় ৭৫ ট্রাক সেনা, অস্ত্র ও সরঞ্জাম পাঠিয়েছে বলে সিরিয়ার সরকারি বার্তা সংস্থা সানা ও আনাদলু এজেন্সি জানিয়েছে।

সিরিয়ার সরকারের অভিযোগ, পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ দেইর আজ-জর ও দক্ষিণপূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ হাসাকেহ’র কয়েকটি এলাকা থেকে তেলসহ প্রাকৃতিক সম্পদ লুটপাটে বিশাল এই সেনাবহন মোতায়েন করেছে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন।

সেনা মোতায়েনের এই ঘটনা স্বীকার করেছে মার্কিন কর্মকর্তারা। তবে তাদের দাবি, ইরাক ও সিরিয়ার আইএস জঙ্গি দমনে এসব সেনা পাঠানো হয়েছে।

গত বছরের অক্টোবরে উত্তর-পূর্ব সিরিয়া থেকে সমস্ত মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। ঘোষণা অনুযায়ী, ওই অঞ্চল সেনা সরিয়ে ইরাকে নেয়া হয়। ২০ অক্টোবর শতাধিক ট্রাকে করে মার্কিন বাহিনী ইরাকে প্রবেশ করে বলে এক প্রতিবেদনে জানায় সিএনএন।

কিন্তু কুর্দি বাহিনী দ্বারা নিয়ন্ত্রিত তেলক্ষেত্রগুলোয় প্রায় ৫০০ সেনা মোতায়েন রাখে ওয়াশিংটন। সম্প্রতি সেই সব সেনাকেই ফিরিয়ে আনা হয়েছে।

কুর্দি নিয়ন্ত্রিত তুর্কি সীমান্তবর্তী উত্তরাঞ্চলীয় নগরী কামিশলি থেকে কয়েকটি সূত্র সিরিয়ার সরকারি সংবাদ সংস্থা এসএএনএ জানিয়েছে, সেমালকা সীমান্ত পথ অতিক্রম করে সিরিয়ার দুই প্রদেশের মার্কিন অবস্থানের দিকে ৭৫টি ট্রাকের একটি বহর গেছে। সীমান্ত পথেই দজলা নদীর ওপর পন্টুনের তৈরি সেতু রয়েছে।

বরাবরের মতোই যুক্তরাষ্ট্রের দাবি, সন্ত্রাসীগোষ্ঠী আইএসের হামলা থেকে তেল ক্ষেত্র এবং স্থাপনা রক্ষায় এ বহর পাঠানো হয়েছে। অথচ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এর আগে বলেছেন, সিরিয়ার তেল ক্ষেত্রগুলো নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে অর্থনৈতিক স্বার্থ হাসিল করবে আমেরিকা। সিরিয়াতে ফের মার্কিন সেনা মোতায়েন মেনে নেয়নি বাগদাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.